Breaking News
August 7, 2019 - Nasim urges all to destroy mosquito breeding grounds
August 7, 2019 - CCC announces daylong mosquito elimination programme
August 7, 2019 - Ctg cattle markets get momentum ahead of Eid-ul-Azha
August 7, 2019 - ICCB highlights two big challenges for Bangladesh’s development
August 7, 2019 - Nursing College student’s body recovered in Madaripur
August 7, 2019 - MOITRI MEDIA CENTER in Madaripur
August 6, 2019 - Defeated forces start hatching plot in August: Quader
August 6, 2019 - 17,338 people recovered from dengue so far
August 6, 2019 - Kolkata dy mayor for elimination of mosquito breeding grounds to check dengue
August 6, 2019 - Tax, duties on dengue test kits lifted
August 6, 2019 - Govt. issues guidelines for dengue patients
July 27, 2019 - Flood prevails in most areas as major rivers decreasing closely
July 27, 2019 - 14-party to hold meeting with professional bodies Sunday
July 27, 2019 - Two prime accused in Badda lynching case give confessional statements
July 27, 2019 - People can get free dengue test from Monday: DNCC Mayor
July 17, 2019 - Major rivers cross danger level at 23 more points across country
July 17, 2019 - Speaker highlights the need of women empowerment
July 17, 2019 - Rowshan thanks countrymen for showing respect to Ershad
July 17, 2019 - Amu urges party men to work in unison to strengthen AL
July 16, 2019 - PM stresses formulation of master plan for development
July 16, 2019 - BNP’s anarchy will not be tolerated: Hasan
July 16, 2019 - DCs asked to prioritize monitoring of PM’s 10 special initiatives
July 16, 2019 - Govt opens two control rooms to monitor flood situation
July 16, 2019 - Ershad’s body to be taken to Rangpur today
July 16, 2019 - PM stresses waterway connectivity with India to promote trade
July 16, 2019 - Khokon urges media not to spread panic about Dengue
July 15, 2019 - Late Monirul Alam Chowdhury, an ex-chairman and politician’s 1st death anniversary today
July 15, 2019 - PM asks DCs to work sincerely for accelerated development
July 15, 2019 - 3 die in dengue, 908 hospitalized
July 15, 2019 - No roadside cattle market permissible during Eid-ul-Azha: Kamal
সংসারকে অবহেলা করতে চাইনি বলেই বিয়ে করা হয় নি : শামিম আরা নিপা

সংসারকে অবহেলা করতে চাইনি বলেই বিয়ে করা হয় নি : শামিম আরা নিপা

এই তো গেল বিপিএলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে চমক জাগানিয়া পারফর্মেন্স দিয়ে নৃত্যশিল্পী শামিম আরা নিপা নজর কেড়েছেন দেশ-বিদেশের অসংখ্য অতিথির । গতবছর বিশ্বকাপ ক্রিকেটের উদ্বোধনী পর্বের নৃত্যজুটি শিবলী মোহাম্মদের সঙ্গে তার নাচ মুগ্ধ করে স্টেডিয়াম উপচে পড়া দর্শকদের।

আজ থেকে তো নয়, সেই আশির দশক থেকে নাচ নিয়ে আছেন শামিম আরা নিপা। শখের বশে একসময় অভিনয়ও করেছেন কয়েকটি টিভিনাটকে। মডেলিংয়েও তাকে দেখা গেছে বিভিন্ন সময়। তবে নাচই হলো তার ধ্যান-জ্ঞান-সাধনা। নৃত্যকলার সব ধারাতেই সাবলীল ও সফল এই শিল্পী। একান্ত আলাপচারিতায় তিনি বলেছেন তার শিল্পী ও ব্যক্তিজীবনের নানা কথা।

নাচের প্রতি ঝুঁকলেন কিভাবে ? পরিবারের সহযোগিতা কেমন ছিল?

শামিম আরা নিপা : আমাদের পরিবারটা ছিল সংস্কৃতি-মনা। পরিবারের প্রায় সবাই সংস্কৃতির কোন না কোন শাখায় জড়িত ছিলেন। আমি বড় হয়ে উঠি ছোট্ট শহর কিশোরগঞ্জে। আমার মনে আছে, খুব ছোটবেলায় আমরা ভাইবোনেরা মিলে আমাদের বাড়ির বারান্দায় শাড়ি টাঙিয়ে স্টেজ করতাম। সেখানে যার যা ভাল লাগত সেগুলো পরিবেশন করতাম। পাড়ার লোকজন ভিড় করে আমাদের নাচগান দেখতে আসতো। ভাইবোনদের অনেকেই নানা পেশা জড়িয়ে গিয়ে সংস্কৃতি চর্চা থেকে সরে এসেছেন। তবে আমার এক বোন মনসুরা বেগম এখনো নিয়মিত রবীন্দ্র সঙ্গীত গায়। ছোটবেলায় সবাই বলতো, আমাকে দেখতে নাকি পুতুলের মতো লাগে। আমার নাচকে সবাই বলতো পুতুল নাচ। নৃত্যের প্রতি

ভাল লাগার এভাবেই শুরু। পরিবারের উৎসাহ-ই আমাকে এ জায়গায় নিয়ে এসেছে। আমি কাজ পাগল মানুষ। কখন খাই, কখন বাসায় ফিরি কোন ঠিক ঠিকানা নাই। আমার পেশা আর কাজের ধরণ আমার পরিবার বোঝে। তাদের সহযোগীতা ছাড়া এ পথে চলতে পারতাম না।

নাচ শিখেছেন কোথায়?

শামিম আরা নিপা : ছোটবেলায় কিছু না বুঝে অন্যদের দেখে দেখেই নাচতাম। নৃত্যকলার বেসিকটা শিখেছি ঢাকা এবং কলকাতার খ্যাতনামা কয়েকজন নৃত্যগুরুর কাছে। নৃত্যকলায় স্কলারশিপ নিয়ে চায়না গিয়েছি। সেখানে কোরিওগ্রাফির ওপর একটা ট্রেনিং নিয়েছি। সত্যি বলতে কী নাচ শেখার কোনো শেষ নেই, এখনো প্রতিনিয়ত শেখার মধ্যেই আছি।

সাম্প্রতিক সময়ে কি কি কাজ করছেন?

শামিম আরা নিপা : আমাদের সংগঠন নৃত্যাঞ্চল প্রতি দুবছর পর পর একটি উৎসব আয়োজন করে থাকে। এ মাসেই আমরা নৃত্যাঞ্চল উৎসব করতে যাচ্ছি। আমাদের এ বছরের থিম হল- রবীন্দ্রনাথের সার্ধশততম জন্মবার্ষিকী। এ উপলক্ষে আগামী ২৮ এপ্রিল আয়োজিত হবে নৃত্যনাট্য। ২৯ এপ্রিল বিশ্ব নৃত্য দিবস। উৎসবের অংশ হিসেবেই এই দিনটি আমরা পালন করবো। র‌্যালিতে আমাদের সাথে সারা দেশ থেকে ১৬ টি নৃত্য সংগঠন অংশ নেবে। পরে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের মুক্ত মঞ্চে নৃত্য প্রদর্শিত হবে। উৎসবকে কেন্দ্র করে আগামী ৩০ এপ্রিল কলকাতা থেকে আসবেন প্রখ্যাত নৃত্যশিল্পী অনিতা মল্লিক। তার পরিচালনায় ‘বিশ্ব বীনা রবে’ থিমে জাতীয় জাদুঘরে নৃত্যনাট্য পরিবেশিত হবে।

এছাড়া বছর জুড়েই তো দেশে এবং দেশের বাইরে নিয়মিত স্টেজ শো’ করছি। আমাদের সংগঠন আগামী ২৬ এপ্রিল একটি শীর্ষস্থানীয় পত্রিকার অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে পারফর্ম করবে। আমিও এই পারফর্মেন্সে অংশ নেব। এই নৃত্যের থিম হল ভাষা আন্দোলনের ৬০ বছর পূর্তি। সংগঠনের সদস্যদের নিয়ে বর্তমানে এই নাচের মহড়া করছি।

আপনার নিজের সংগঠন নৃত্যাঞ্চল সম্পর্কে জানতে চাই?

শামিম আরা নিপা : আমরা সমমনা কজন নৃত্যশিল্পী একটি প্লাটফর্মে দাঁড়িয়ে নৃত্যচর্চার জন্য ২০০০ সালে নৃত্যাঞ্চল প্রতিষ্ঠা করি। আমাদের নৃত্যাঞ্চল ২০০২ সাল থেকে স্কুলিং শুরু করি। এখানে কত্থক, ভরতনাট্যম, সৃজনশীল এবং ফোক শেখানো হয়। ঢাকায় নৃত্যাঞ্চলের দুইটা শাখা আছে। দুই শাখা মিলিয়ে ৬০০-৭০০ জন স্টুডেন্ট আছে নৃত্যাঞ্চলের।

একটা সময় আপনাকে টিভিনাটকে অভিনয় আর মডেলিং করতে দেখা গেছে, এখন দেখা যায় না কেন?

শামিম আরা নিপা : শখের বশে একটা সময় অভিনয় আর মডেলিং করেছি। কখনোই অভিনয় বা মডেলিংকে পেশা হিসেবে নেওয়ার কথা ভাবি নি। আমি নৃত্যশিল্পী, আমার নেশা ও পেশা সবকিছুই নাচ নিয়ে।

যথেষ্ট গ্ল্যামার থাকা সত্ত্বেও শোবিজের অন্য শাখায় না গিয়ে তুলনামূলক অপ্রতিষ্ঠিত পেশা নৃত্যকে বেছে নিয়েছেন কেন?

শামিম আরা নিপা : সবাই যদি একরকম হয় তাহলে চলবে কেন! কাউকে তো কিছু না কিছু ছাড় দিতেই হবে। কাজের প্রতি নিষ্ঠা থাকলে, একাগ্রতা থাকলে লাভবান হওয়ার চিন্তটা কিছুটা হলেও দুরে রাখা যায়। আর আগের চেয়ে এখন নৃত্যশিল্প অনেক এগিয়েছে। এখানে শিল্পী সত্ত্বার পাশাপাশি শিক্ষকতা করার সুযোগ থাকছে। যার কারণে নাচকে পেশা হিসাবে নেওয়া সম্ভব হচ্ছে। যদি কেউ সত্যিকার অর্থেই মনোনিবেশ করে আর যথেষ্ট স্কিল্ড হয় তাহলে সে অবশ্যই যোগ্য অবস্থানে পৌঁছাতে পারবে।

জীবন সম্পর্কে আপনার চিন্তাধারা জানতে চাই ?

শামিম আরা নিপা : আমার কাছে মনে হয়, কাজই জীবন। কাজের মধ্যে থাকলেই জীবনকে সঠিকভাবে উপভোগ করা যায়। কখনো কখনো জীবনে অযাচিতভাবে ঢুকে পরতে পারে নানা রকম স্বার্থপরতা। জীবনের সুখটা যেমন আমার, দুঃখটাও কিন্তু আমারই। সব রকম স্বার্থপরতা ছেড়ে পরিজনদের সাথে সুখ দুঃখ শেয়ার করতে জানলে জীবন অন্যরকম সুন্দর হয়ে যায়। জীবনে নানা রকম অপূর্ণতা তো আছেই, কিন্তু আমি সেটা নিয়ে ভাবিনা। আমি আমার বিশাল প্রাপ্তি নিয়ে ভাবি যেটা আমাকে সবসময় গর্বিত করে। সেই প্রাপ্তি কাজে নতুন করে উদ্যোম এনে দেয়। নিজের ছোট্ট গন্ডির ভেতর থেকেই ভাল থাকার নির্যাস খুঁজি।

বিয়ে কি ক্যারিয়ারের জন্য বাঁধা ?

শামিম আরা নিপা : সব সময় না। পারস্পরিক বোঝাপড়া ভাল থাকলে তখন ঠিক আছে। কাজের ক্ষেত্রে পারিবারিক সাপোর্ট না পাওয়ার সম্ভাবনা থাকলে বিয়ে না করাই ভাল। কারণ বিয়ে খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটা সামাজিক দায়িত্ববোধ। বিবাহিত জীবনকে সঠিকভাবে সময় দেওয়া উচিত। আমি নিজে যখন খেয়াল করলাম আমার জীবনে কাজের প্রাধান্য বেশি, তখন নিজে থেকেই গুটিয়ে গেছি। সংসার জীবনকে কিছুতেই অবহেলা করতে চাইনি বলেই বিয়ে করা হয় নি।

আপনার নৃত্যজুটি শিবলী মোহাম্মদ এবং আপনি দুজনেই ব্যক্তিজীবনে একা । দুজন দীর্ঘদিন ধরে বন্ধু এবং কাজের নিয়ে একসঙ্গেই কাটান বেশিরভাগ সময়। সম্পর্কটা কি অন্য দিকে মোড় নিতে পারতো না?

শামিম আরা নিপা : পারতো আবার হয়ত পারতোও না। দীর্ঘদিন ধরে এক সংগঠনে কাজ করছি। দেশে এবং দেশের বাইরে শো’ করতে সংগঠনের সব সদস্যরা একসাথে ট্যুরে যাই। সবাই মিলে একটা বিশাল পরিবার। সংগঠনের বাইরে আলাদা করে আরেকটি পরিবার গঠনের চিন্তা মাথায় আসেনি। আসলে এতটাই ব্যস্ত থাকতে হয় যে শিবলী কিংবা আমি কারো ভেতরেই এই ইমোশনটা তৈরি হওয়ার সুযোগ পায়নি। তাছাড়া একসঙ্গেই তো কাজ নিয়ে আছি।

প্রিয় নৃত্যশিল্পী কারা?

শামিম আরা নিপা : আলাদা করে পছন্দের শিল্পীর নাম বলা আমার জন্য অনেক কঠিন। অনেকের অনেক কিছুই আমাকে মুগ্ধ করে। দেশ কিংবা বিদেশের খ্যাত বা অখ্যাত সবারই সহজাত কিছু জিনিস ভাল লাগে। একটা ছোট্ট বাচ্চার নাচ দেখেও আমি মুগ্ধ হয়ে তাকিয়ে থাকি। ভাবি এই ছোট্ট বয়সে এই জিনিসটা সে কেমনে আয়ত্ব করল! সুষ্ঠ ধারার নাচ আমাকে মুগ্ধ করে। শিল্পীর চেয়েও শিল্পকে আমি বেশি প্রাধান্য দেই।

নাচ নিয়ে সামনে কি পরিকল্পনা আছে?

শামিম আরা নিপা : অনেক কাজ করছি এবং সেই সঙ্গে নাচ নিয়ে সুন্দর কিছু করার জন্য গবেষনা চালিয়ে যাচ্ছি। ট্র্যাডিশনাল কিছু কাজ এখন থেকে নিয়মিত করব। আমাদের দেশীয় সাংস্কৃতিক শেকড় অনেক মজবুত। নৃত্যাঞ্চলের মাধ্যমে আমাদের ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা লোকনাচগুলোকে সংগ্রহ করার চিন্তুা করছি। আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্মের সাথে শেকড়ের পরিচিতি ঘটানোর জন্য এই বিলুপ্ত অধ্যায়কে সঠিকভাবে উপস্থাপন করতে চাই। আমরা এই বিষয়টা নিয়ে ব্যাপকভাবে কাজ শুরু করতে চাই।

About author

AWARD

Reflection Team

বাংলা

স্যান্ডউইচের দামে দেহ বিক্রি করছেন গ্রিক নারীরা!

স্যান্ডউইচের দামে দেহ বিক্রি করছেন গ্রিক নারীরা!

ভেঙে পড়ছে গ্রিসের অর্থনীতি। দুই মেয়াদে ক্ষমতায় এসেও সিপ্রাস সরকার চিত্রটা পাল্টাতে পারেনি। দিন দিন বাড়ছে বেকারত্ব। গোটা দেশটার আর্থ-সামাজিক…

Recent Video

Photo Gallery

Folder not found
wp-content/uploads/2012/02/