Breaking News
June 21, 2020 - The tiger hunter chess is infected with corona
June 16, 2020 - (no title)
June 16, 2020 - আবদুল্লাহ বঙ্গবন্ধুর আদর্শের পরীক্ষিত সৈনিক ছিলেন: প্রধানমন্ত্রী
June 16, 2020 - International United Kingdom International news Life-saving drugs have been found in the treatment of corona: BBC
June 12, 2020 - এই সময়ে জ্বর হলে যা করবেন
June 12, 2020 - ‘সরল মনে বললেও বর্ণবাদী মন্তব্য কখনোই নয়’
June 12, 2020 - বাজেট সরকারের সময়োচিত সাহসী চিন্তার ফসল: কাদের
June 12, 2020 - India confirms 8,107 coronavirus deaths
June 12, 2020 - MP Moslem Uddin, 9 other members of family test Covid positive
June 12, 2020 - Mohammad Rassel, Managing Director and Chief Executive Officer of Evaly along with Sushil Chandra Ghosh, Chief Operating Officer of Partex Furniture Industries Limited (PFIL), poses after signing an agreement at the head office of Partex Furniture at Tejgaon in the capital on Wednesday. Under the deal, Partex Furniture will sell a variety of products in Evaly as an approved online-based marketplace.
June 11, 2020 - Chess match
May 29, 2020 - করোনার আগুন (কবিতা)
May 5, 2020 - 90 pc Boro paddy harvested in haor areas: Razzaque
May 5, 2020 - Govt. committed to do everything for agri dev: Shahab Uddin
May 5, 2020 - 54.48 lakh people get relief support in Rajshahi division
May 3, 2020 - BSTI accelerates activities to keep import normal amid COVID-19
April 22, 2020 - Bangladesh reports 10 more deaths, 390 fresh positive cases from COVID-19
April 22, 2020 - Sherpur beggar gets house for setting rare instance of help
April 22, 2020 - IEB launches telemedicine service amid coronavirus crisis
April 22, 2020 - Panthapath landlady sent to jail for evicting helpless tenant
April 20, 2020 - Govt to procure 21 lakh MT food grains this season: PM
April 20, 2020 - 9,097 tonnes of foodstuffs distributed in Rajshahi division
April 20, 2020 - Save the Children piloting free telemedicine consultation services
April 5, 2020 - ছুটি ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ল
April 5, 2020 - কোভিড-১৯ মোকাবিলায় ৭২,৭৫০ কোটি টাকার প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী
April 5, 2020 - PM unveils Tk 72,750 crore package to overcome Covid-19 impact
April 2, 2020 - সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মাস্ক ব্যবহারের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর
April 2, 2020 - সাবেক ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ ডিলু ইন্তেকাল করেছেন
April 2, 2020 - PM mourns death of Shamsur Rahman Sherif, MP
April 1, 2020 - করোনার ভ্যাকসিন তৈরি করবে ব্রিটিশ আমেরিকান টোবাকো, জুনের মধ্যেই

একান্ত সাক্ষাৎকারে বাংলাদেশ ব্যাংক গভর্নর ডঃ আতিউর রহমান বলেন: ‘‘রাজস্ব ও আর্থিক খাতের সুসমন্বয় ভিত্তিক বহুমুখী পদক্ষেপ নেয়ায় জিডিপি প্রবৃদ্ধি সুদৃঢ় ভিত্তির ওপর প্রতিষ্ঠিত হয়েছে’’

ডঃ আতিউর রহমান বর্তমানে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর হিসেবে অত্যন্ত দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করছেন। নিজেকে সাদা-মাটাভাবে উপস্থাপন করতেই যিনি বেশি পছন্দ করেন। কৃষি ও কৃষক অন্তপ্রাণ ডঃ আতিউর রহমান কৃষকদের ভাগ্য উন্নয়নের লক্ষ্য ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকটি যুগান্তরকারী পদক্ষেপ নিয়েছেন। কৃষকদের মাত্র ১০ টাকায় ব্যাংক একাউন্ট খোলার সুযোগ করে দিয়ে তিনি তাদের আরো কাছের মানুষ হিসেবে পরিচিতি পেয়েছেন। এর অবশ্য একটা কারণও আছে।  দেশের আশি ভাগ কৃষকের ভাগ্যের উন্নয়ন না হলে সামগ্রিক অর্থনীতির চিত্র বদলানো সম্ভব নয়। এটা অন্তর দিয়ে অনুভব করতে পেরেছেন বলেই ড. আতিউর রহমান খেটে খাওয়া মানুষের কাছে সমাদৃত হতে পেরেছেন বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমে। অসচ্ছলতার সাথে যুদ্ধ করেই জীবনে তিনি প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন। সামাজিক, অর্থনৈতিক প্রতিবন্ধকতার মধ্যে দিয়েই শৈশব পার করেছেন তিনি। এসব কথা অপকটে বলতে তিনি কখনো কার্পণ্য করেন না। মেধাবী ছাত্র

ছিলেন বলে মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজে তাঁর বৃত্তির ব্যবস্থা করা হয়। তিনি এসএসসি ও এইচএসসিতে যথাক্রমে ৫ম ও ৯ম স্থান অধিকার করেন। কলেজ পর্যায়ে সাফল্যের পর আর তাকে পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে উচ্চতর ডিগ্রী লাভ করেন। কমনওয়েলথ স্কলারশীপ নিয়ে ইউনিভার্সিটি অব লন্ডন থেকে এমএস ও পিএইচডি ডিগ্রী অর্জন করেন।  একজন দরিদ্র-বান্ধব ও বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ হিসেবে দেশের অর্থনীতিতে ব্যাপক অবদান রেখেছেন তিনি। মহাজোট সরকারের রূপকল্প রচনায় তার ভূমিকা উল্লেখ্য করার মতো । দু’বছর আগে তিনি বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্ণর হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। এ স্বল্প সময়ের মধ্যেই দায়িত্ব পালনে তার সাফল্য আজ দৃশ্যমান। কৃষি ও কৃষকের উনণয়নে তার পদক্ষেপগুলো ছিল প্রশংসনীয়। এ ছাড়া ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্প, নারীর ক্ষমতায়ন ও নারী উদ্যোক্তাদের উন্নয়নে গৃহীত বিভিন্ন কর্মসূচী বাসত্মবিক অর্থেই একটা ইতিবাচক ধারনা সৃষ্টি করতে সক্ষম হয়েছে  এটা নিঃসন্দেহে  বলা যায়। সম্প্রতি রিফ্লেকশন নিউজ এর পক্ষ থেকে তার একটি বিশেষ সাক্ষাৎকার গ্রহণ করা হয় । নিন্মে তা পত্রস্থ করা হল:

রিফ্লেকশন নিউজ: দেশের বর্তমান অর্থনৈতিক অবস্থা সম্পর্কে কিছু বলুন। আপনি দেশের অর্থনিতি নিয়ে কতটা আশাবাদী ?

ডঃ আতিউর রহমানঃ দেশের সামগ্রিক অর্থনৈতিক অবস্থা খুব ভাল এবং আশাব্যঞ্জক। ব্যক্তিগত ভাবে আমি খুবই আশাবাদী। বিশ্বের সবদেশে কেন্দ্রীয় ব্যাংক স্বতন্ত্র ভূমিকা পালন করে। শক্ত অবস্থান বজায় রেখেই আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের রেফারী কোন অবস্থায় আপোষ করতে পারে না। শক্ত অবস্থান থেকে অর্থনীতিকে এগিয়ে নিতে চাই। আমরা প্রবৃদ্ধির হার যদি ৭ শতাংশে নিয়ে যেতে পারি, তাহলে অর্থনীতির পুরো চিত্র পাল্টে যাবে।

রিফ্লেকশন নিউজ: ব্যাংকগুলো পুজিঁবাজারে  যে হারে বিনিয়োগ করছিলো পরবর্তীতে সে পুজিঁ সরিয়ে আনায় বাজার বড় ধাক্কা খেয়েছে আগামী দিনগুলোতেও কি ব্যাংকগুলো পূর্বের ন্যায় বাধাহীন ভাবে পুজিঁবাজারে বিনিয়োগে যাবে ? এ ব্যাপারে কেন্দ্রীয় ব্যাংক কি ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে ?

ডঃ আতিউর রহমানঃ বারবার সতর্ক করা সত্ত্বেও বাস্তবিক অর্থে দু’একটি ব্যাংক সীমা অতিক্রম করেছিল। তারা সবাই এখন নিয়মের মধ্যে ফিরে এসেছে। তাছাড়া, প্রত্যেক ব্যাংকই এজন্যে আলাদা সাবসিডিয়ারী খুলেছে। তাই মূল ব্যাংকের পক্ষে অতিরিক্ত ঝুঁকি গ্রহণের সুযোগ নেই। নিয়ম কানুন অনেক বেশি করাকড়ি করা হয়েছে। নজরদারী বাড়ানো হয়েছে । আমার ধারনা আগামীতে পুজিঁ বাজার আরো বেশি সুশৃঙ্খল হবে। পুজিঁবাজার ও মুদ্রা বাজার অনেক বেশী স্থিতিশীল হবে। আমাদের রেগুলেশন শক্ত থাকলে কারো অসৎ উদ্দেশ্য  সফল হবে না।

রিফ্লেকশন নিউজ: দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে এসএমই উদ্যোক্তা তৈরির ব্যাপারে কি পরিকল্পনা নিয়েছেন ?

ডঃ আতিউর রহমানঃ বাস্তবিক অর্থে ভৌগলিক অবস্থানগত কারণে আমরা সারা দেশে এসএমই উদ্যোক্তা তৈরি করতে পারবো না। সে কারণে আমরা এসএমই উদ্যোক্তাদের জন্যে বিশেষ অঞ্চল গড়ে তোলার পক্ষে। যেমন- বগুড়াতে প্রায় একহাজার কোটি টাকার এসএমই হয়। সেখানে এমন কৃষি যন্ত্রপাতি হয় যেগুলোর ভারতে ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। সেখানে ব্যাংকগুলো সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে। এভাবে অঞ্চলভিত্তিক বিশেষত্ব বিবেচনায় এনে দেশের সর্বত্র এসএমই’র উন্নয়ন করা সম্ভব। তবে খেয়াল রাখতে হবে এই ঋণ যেন উৎপাদনশীল খাতেই প্রবাহিত হয়।

রিফ্লেকশন নিউজ: মোট যে ক্রেডিট আছে তার কতটুকু অনুৎপাদনশীল খাতে চলে গেছে ? ক্রেডিট ধরে রাখতে কি ধরনের উদ্যোগ নিচ্ছেন ?

ডঃ আতিউর রহমানঃ বেসরকারি খাতে প্রদত্ত মোট ঋণে কনজ্যুমার ক্রেডিটের অংশ মাত্র ৭.০ শতাংশের মতো। তবে উৎপাদনশীল খাতে ক্রেডিট প্রবাহের জন্যে কৃষি ও শিল্পে বেশি করে নজর দিচ্ছি। অন্যান্য খাতকে উৎসাহিত করার জন্যে ভোক্তা ঋণ কমিয়ে দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছি। বিলাসি পণ্য কেনার জন্যে অনেকে ঋণ নিতে চায়। এক্ষেত্রে নিরুৎসাহিত করার জন্যে ঋণের মার্জিন ও সুদ বাড়ানো যেতে পারে। আমার ধারনা অনেক দিন পর হলেও অর্থনীতি সঠিক নির্দেশনার মধ্যে চলে এসিছে। শুরুতে একটু চাপ ছিল। তবে দীর্ঘ মেয়াদী চিন্তা করলে সঠিকভাবেই এগোচ্ছে।

রিফ্লেকশন নিউজ: অনেকের ধারনা উচ্চ সুদের কারণে আমদানী ও রপ্তানী ব্যয় বৃদ্ধি পাবে এবং নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য সহ অন্যান্য  পণ্যের  মূল্য বৃদ্ধি পাবে। এ ব্যাপারে আপনি কি মনে করনে ?

ডঃ আতিউর রহমানঃ নিত্য প্রয়োজনীয় ব্যবহার্য জিনিস পত্র ও ভোগ্য  পণ্যের উপর সুদ বাড়বে না।  এতে কোন প্রভাব পরার কোন সম্ভাবনা নেই। তবে আমদানির ওপর একটু সমস্যা হবে। তাও আবার দীর্ঘ মেয়াদি ক্ষেত্রে হবে না। সমস্যা যতটুকু হবে তা হবে স্বল্প সময়ের জন্যে।  তবে ব্যংাকগুলোর আয় বুঝে ব্যয় করার প্রক্রিয়া থাকা উচিত।

রিফ্লেকশন নিউজ: ‘বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব ব্যাংকস’ আমানতের সুদের হার ১২ শতাংশ প্রস্তাব করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এটা কতটা যৌক্তিক বলে মনে করেন ?

ডঃ আতিউর রহমানঃ ঋণ বা আমানতের সুদের হার বাংলাদেশ ব্যাংক ঠিক করে না। ব্যাংকগুলো নিজেরাই ঠিক করে। এক্ষেত্রে বাংলাদেশ ব্যাংক বলে দিবে না বানিজ্যিক ব্যাংকগুলো কি করবে। বাজার অর্থনীতিতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সরাসরি হার বেঁধে দেবার সুযোগ নেই। তবে আমরা বলবো গ্রাহকের স্বার্থ বিবেচনায় আনা হোক। সেরকমই পরামর্শ ব্যাংকগুলোকে দিচ্ছি।

রিফ্লেকশন নিউজ: বাংলাদেশে এখনও পেপাল আসেনি এবং এর ফলে সাধারন মানুষ এখনো ইন্টারনেটের মাধ্যমে বিদেশে কারও সাথে লেনদেন করতে পারে না। আপনাকে আমরা আইসিটি খাতের বন্ধু হিসেবে চিনি। আমাদের দেশে অচিরেই পেপাল নিয়ে আসার ব্যাপারে আপনি কোনো পদক্ষেপ নিবেন কি?

ডঃ আতিউর রহমানঃ মানি ট্রান্সফার করার জন্য আন্তর্জাতিকভাবে পেপাল হলো একটি আধুনিক গেটওয়ে। ব্যাংকিং সিস্টেমটাকে পুরোপুরি ডিজিটালকরণে মানসিকভাবে আমরা অনেক এগিয়ে আছি । আপনাদের প্রস্তাবনার বিষয়টি আমি উপযুক্ত ফোরামে আলোচনাপূর্বক সিদ্ধান্ত নিব।

রিফ্লেকশন নিউজ: বর্তমানে বাংলাদেশে অনেক ফিনান্সার রয়েছে যারা দেশে বসে বিদেশের বিভিন্ন কোম্পানীর সাথে কাজ করছে। কিন্তু বিদেশ থেকে টাকা পেতে প্রায় তাদেরকে বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় এ সমস্যা সমাধানে আপনাদের কোন পরিকল্পনা রয়েছে কি?

ডঃ আতিউর রহমানঃ দেখুন, রেমিট্যান্সের অন্তপ্রবাহ বা বিদেশি বাণিজ্যের কারণে বিদেশ থেকে টাকা প্রাপ্তির জটিলতা নিরসনকল্পে ইতোমধ্যে আমরা ব্যাপক পদক্ষেপ নিয়েছি। এসমস্ত ব্যবস্থার অতিরিক্ত হিসেবে সরকারি সহযোগিতায় ইতোমধ্যে একটি প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকও প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। ফলে, বিদেশি অর্থ সংগ্রহে পূর্বের থেকে এখন জটিলতা নিরসনের পাশাপাশি অনেক দ্রম্নততম সময়ে টাকা লেনদেন করা যাচ্ছে। এর সুফল আমরা রেমিট্যান্স সংগ্রহের ক্ষেত্রে এরই মধ্যে পেতে শুরু করেছি।

রিফ্লেকশন নিউজ: অগ্রগতির দু’বছর সম্পর্কে বাংলাদেশ ব্যাংকের কার্যক্রম ও পদক্ষেপ সম্পর্কে বি স্তারিত জানতে চাচ্ছি?

ডঃ আতিউর রহমানঃ একটি দক্ষ গতিশীল ও সুব্যবস্থিত আর্থিক খাত গড়ে তোলা সহ সামগ্রিক ভাবে একটি  সুখি, সমৃদ্ধ ও উন্নত বাংলাদেশ গড়তে সরকারের দীর্ঘ মেয়াদী রূপকল্পের পর্যায়ক্রমিক বাস্তবায়নের সুগভীর প্রত্যয়ের প্রেক্ষাপটে গত দু’বছরে বাংলাদেশ ব্যাংকের গ্রহীত কার্যক্রমসহ দেশের সর্বশেষ সামষ্টিক অর্থনৈতিক পরিস্থিতির ওপর আলোকপাত করতে চাই।

সাষ্টিক অর্থনৈতিক নির্দেশকসমূহ ঃ জিডিপির অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি সুস্থ ও বর্ধিষ্ণু ধারাতেই রয়েছে। সাম্প্রতিক সময়ে সরকার ও বাংলাদেশ ব্যাংকের  বহুমুখী পদক্ষেপের কারণে কৃষি, ম্যানুফেকচারীং ও সেবা খাতের জোরালো সম্প্রসারনের কারণে জিডিপির প্রবৃদ্ধি সুদৃঢ় ভিত্তির উপর প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। জিডিপির প্রকৃত প্রবৃদ্ধি চলতি অর্থ বছরের ৭ শতাংশের কাছাকাছি এবং আগামী বছর ৭ শতাংশ ছাড়াবে বলে আশা করি। জুলাই-এপ্রিল ২০০৯ এ যেখানে রপ্তানি প্রবৃদ্ধি ছিল ১২.৬২ শতাংশ সেখানে জুলাই-এপ্রিল ২০১১ – এ রপ্তানি প্রবৃদ্ধি হয় গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ৪০.৮৮ শতাংশ। আমদানি ক্ষেত্রেও বেশ অগ্রগতি লক্ষযনীয়।  রেমিট্যান্সও বৃদ্ধি পেয়েছে উল্লেখ্যযোগ্য হারে। জুলাই-এপ্রিল ২০১১ এ দেশে প্রাপ্ত রেমিট্যান্স এর পরিমান ৯৬১২.৯৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার, যা পূর্ববর্তী অর্থ বছরের একই সময়ের তুলনায় ৪২০.৭৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বা ৪.৬ শতাংশ বেশি। রেমিট্যান্স বৃদ্ধির জন্য গত দু’বছরে বিদেশে ৩১টি এক্র্চেঞ্জ হাউজ ও ১৮০টি ড্রইং ব্যবস্থার অনুমোদন দেয়া হয়। এ ছাড়া বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভও বেড়েছে উল্লেখ্যযোগ্য হারে। এপ্রিল ২০১১ এর মাঝামাঝি সময়ে বৈদেশিক রিজার্ভর পরিমাণ দাঁড়িয়েছে প্রায় ১১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার, যা মার্চ ২০০৯ এ ছিল ৫.৯৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। আমদানির চাপ অতিরিক্ত হওয়া সত্ত্বেও আমরা এই রিজার্ভ সম্মানজনক পর্যায়ে রাখতে সচেষ্ট রয়েছি।

আর্থিক খাতে স্থিতিশীলতা সুসংহতকরণের লক্ষে্য ব্যাংক/আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর মূলধন পর্যাপ্ততা নিরূপণের জন্যে ব্যাসেল-২ নীতিমালা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। কৃষিখাতে বর্তমান অর্থবছরে (২০১০-২০১১) এ যাবত কালের মধ্যে সর্বোচ্চ ১২৬০০কোটি টাকা ঋণ বিতরণের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে (এপ্রিল, ২০১১) ব্যাংকগুলো মোট লক্ষ্য মাত্রার প্রায় ৮২ শতাংশ অর্জন করেছে। গত অর্থ বছরে (২০০৯-২০১০) কৃষি ঋণ বিতরণের লক্ষে্য মাত্রার প্রায় ৯৭ শতাংশ অর্জিত হয়। বর্গাচাষীদের প্রাতিষ্ঠানিক ঋণ প্রাপ্তি নিশ্চিত করনের জন্য ৫০০কোটি টাকার একটি পূণঃঅর্থায়ন স্কীম চালু করা হয়েছে । এ স্কীমের ১লাখ ২৬ হাজার ৬৮৬ জন বর্গাচাষীকে প্রায় ২১৮টি স্বীমে ২৭ লাখ টাকা ঋণ প্রদান করা  হয়েছে। সব মিলে অন্তুর্ভুক্তিমূলক ব্যাংকিং -এর নতুন নতুন সুযোগ সৃষ্টিতে আমরা নিরন্তর কাজ করে যাচ্ছি।

সাক্ষাতকার গ্রহণঃ মাহমুদুল হক খান দুলাল

About author

AWARD

Reflection Team

বাংলা

আবদুল্লাহ বঙ্গবন্ধুর আদর্শের পরীক্ষিত সৈনিক ছিলেন: প্রধানমন্ত্রী

আবদুল্লাহ বঙ্গবন্ধুর আদর্শের পরীক্ষিত সৈনিক ছিলেন: প্রধানমন্ত্রী

: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ধর্ম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ও একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের প্রবীণ নেতা অ্যাডভোকেট শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহর মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন। এক…

Recent Video

Photo Gallery

Folder not found
wp-content/uploads/2012/02/